ব্রণ ও ব্ল্যাকহেডস দূর করতে অ্যাসপিরিন মাস্ক

আমাদের মধ্যে এমন কাউকেই হয়ত খুঁজে পাওয়া যাবে না যারা ব্রণ বা ব্ল্যাকহেডস সমস্যাতে ভোগেন না।একটু লক্ষ্য করলে দেখবেন ব্ল্যাকহেডস বা ব্লেমিস দূর করার জন্য ব্যবহৃত স্ক্রাবের প্রধান উপকরণ হচ্ছে স্যালিসাইলিক এসিড। স্যালিসাইলিক এসিড ব্রণের আকার ছোট করে, ব্রণের দাগ দূর করে এবং ব্ল্যাকহেডস দূর করে। এই স্যালিসাইলিক এসিড আবার জনপ্রিয় ব্যথা নিরোধক অ্যাস্পিরিনের(বাজারে ডিস্প্রিন নামে পাওয়া যায়) প্রধান উপকরণ। সেই অ্যাসপিরিন দিয়েই তৈরি অ্যাসপিরিন মাস্ক, যা পুরো পৃথিবীতে বেশ জনপ্রিয়। আসুন জেনে নেই কীভাবে তৈরি করবেন অ্যাসপিরিন মাস্ক। অ্যাসপিরিন মাস্ক তৈরির রেসিপি ত্বক ভেদে ভিন্ন হয়ে থাকে। মাস্কটি ত্বক কে বেশ শুষ্ক করে দেয় তাই শুষ্ক ত্বকের জন্য নিতে হবে বাড়তি যত্ন।
10557210_1462322284025210_4641742580881420130_n
যা প্রয়োজনঃ

মাস্কটি তৈরি করতে আপনার প্রয়োজন অ্যাস্পিরিন ট্যাবলেট। বাজারে বিভিন্ন নামে অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট পাওয়া যায়। তবে এর মধ্যে কিছু ট্যাবলেট কোটেড আর কিছু আনকোটেড। আনকোটেড ট্যাবলেট মাস্কটি তৈরিতে বেশি সুবিধাজনক(সহজে গলে)। আনকোটেড ট্যাবলেটের মধ্যে ডিসপ্রিন অন্যতম। এটি বেশ সহজলভ্য ও দামে সস্তা।

শুষ্ক ত্বকের জন্যঃ

উপকরণঃ

• অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট – ৩-৪ টি।

• মধু – ১ চা চামচ।

• আমন্ড অয়েল – কয়েক ফোঁটা

আধা চা চামচ পানিতে ট্যাবলেট গুলো ভিজিয়ে রাখুন। ট্যাবলেট গলে গেলে মধু ও আমন্ড অয়েল মেশান। মুখে লাগিয়ে ১৫-২০ মিনিট রাখুন। পরিষ্কার পানিতে মুখ ধুয়ে ফেলুন। ধোয়ার সময় আলতো ভাবে ম্যাসেজ করুন। মুখ মুছে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন।

তৈলাক্ত/কম্বিনেশন ত্বকের জন্যঃ

উপকরণঃ

• অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট- ৩-৪ টি।

• লেবুর রস-১ চা চামচ।

পূর্বের নিয়মে অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট গলিয়ে তাতে লেবুর রস দিয়ে ভালো ভাবে মেশান। মুখে লাগিয়ে ১৫-২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।

অ্যাসপিরিন মাস্কের উপকারিতাঃ

• ব্রণের পরিমাণ কমায়।

• ত্বক নরম ও কোমল করে।

• নিয়মিত ব্যবহারে ব্রণের প্রকোপ কমায়।

• ব্ল্যাকহেডস /হোয়াইটহেডস দূর করে।

• অ্যাসপিরিনের অ্যান্টিইফ্লামেটরি গুন রয়েছে, যা মুখের ফোলা ভাব কমায়, জীবানুযুক্ত ব্রণ দূর করতে সাহায্য করে।

সতর্কতাঃ

• সপ্তাহে ১ দিনের বেশি মাস্কটি ব্যবহার না করাই ভালো। তা না হলে ত্বক শুষ্ক ও খড়খড়ে হয়ে যেতে পারে।

• মাস্কটি তোলার সময় ভেজা কাপড় ব্যবহার করুন। পানির ঝাপটা দিয়ে নয়। মাস্ক চোখে বা নাকে গেলে জ্বালাপোড়া হতে পারে।

• অ্যাস্পিরিন মাস্ক ত্বক কে স্পর্শকাতর করে তোলে। তাই মাস্ক ব্যবহারের পর রোদে গেলে অবশ্যই সানস্ক্রিন লাগাতে হবে।

• অ্যাসপিরিনে অ্যালার্জী থাকলে বা আপনার ত্বক স্পর্শকাতর হলে মাস্কটি ব্যবহার করবেন না।

• ১৮ বছরের নীচে এই মাস্ক ব্যবহার না করাই ভালো।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s